POLITICAL ECONOMY NEW MEDIA AND NETWORK SOCIETY

POLITICAL ECONOMY , NEW MEDIA AND THE NETWORK SOCIETY

 
প্রযুক্তির নতুনত্বের প্রতি আমাদের মাঝে একটি সাধারণ শক্তিশালী আকর্ষণ রয়েছে । প্রযুক্তি সম্পর্কে আমাদের আকর্ষণ অনেক পুরোনো । নতুন প্রযুক্তিগুলোতে ব্যক্তিভিত্তিক আবিস্কারের প্রতি ঝোঁক দেখা যায় । আলেকজান্ডার গ্রাহাম বেল এবং টেলিফোন , থমাস এডিসন এবং বৈদ্যুতিক বাতি, মার্কুনি এবং রেডিও প্রভৃতি আবিষ্কারে ব্যক্তিগত কৃতিত্ব এবং সৃজনশীলতা দেখা যায়।
বর্তমান কম্পিউটার প্রযুক্তির উন্নয়নও কিছু ব্যক্তির চিন্তার সাথে যুক্ত। বিলগেটস এবং মাইক্রোসফট ওইনন্ডোজ, স্টিভ জবস্ এবং অ্যাপল কম্পিউটার প্রভৃতি। তবে প্রযুক্তিগত উন্নয়নের জন্য এখনো প্রচুর উদ্যোগ লক্ষ্য করা যায়।
 
প্রযুক্তিগত উন্নয়নে একটি বড় সমস্যা হল প্রযুক্তিগত উন্নতি বিদ্যমান উন্নয়ন প্রক্রিয়ার দ্বারাই সংগঠিত হয়েছে । প্রযুক্তিগত উন্নতি ব্যক্তিগত আবিস্কারের মাধ্যমে আগ্রহী হওয়ার চেয়ে, ব্যবহার করা ও ব্যবহার করার মাধ্যমে শেখার দ্বারা বেশি অগ্রগতি সাধিত হয়েছে ।
 
 
 
POLITICAL ECONOMY
 
 
 
 

CONTINUITY AND CHANGE IN MEDIA TECHNOLOGIES

 
গণমাধ্যমের পুরাতন প্রযুক্তিগুলো যেমন টেলিভিশন, টেলিগ্রাফ এবং উনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিকের ও বিংশ শতাব্দীর শুরুতে বিদ্যুতের সাথে সংশ্লিষ্ট পূর্বের প্রযুক্তিগত বিল্পবগুলো নিউ মিডিয়া কিভাবে বিকশিত হবে তা সম্পর্কে ধারণা দেয়।
যোগাযোগ বিদ James Carrey ১৮৪০ এর দশকে টেলিগ্রাফের উন্নয়ন এবং এ দ্বারা সামাজিক পরিবর্তনের চারটি পয়েন্ট চিহ্নিত করেছেন।
প্রথমটি হল, টেলিগ্রাফ এবং রেলওয়ে শিল্প। এ দুটি সেক্টর ঊনবিংশ শতাব্দীর মধ্যভাগে উন্নতি লাভ করে। দ্বিতীয়ত, টেলিগ্রাফের উন্নতি অন্যান্য ইলেক্ট্রনিকস্ পণ্যের বাজার সৃষ্টি ও উত্থানের সাথে জড়িত। তৃতীয়ত, বার্তার চলাচল ও অন্যান্য দৃশ্যত বস্তুু থেকে পৃথক এবং এ দ্বারা পরিবহণ থেকে বার্তার চলাচল পৃথক হিসেবে অনুধাবন করা হয়। চতুর্থত, এটি আনাদের প্রতিদিনের কথাবার্তা এবং বিভিন্ন আন্তঃব্যক্তিক লেনদেনে পরিবর্তন নিয়ে এসেছে। প্রযুক্তিগত উন্নয়নের ইতিহাস বিশ্লেষণ করলে বোঝা যায়, নিউ মিডিয়ার আলোচনা কিভাবে করা হবে তা নির্ধারিত হয় ঐ প্রযুক্তিটা কিভাবে মানব সভ্যতাকে রূপান্তর করছে তার উপর । সম্প্রচার মাাধ্যমের উন্নয়ন তুলনামূলকভাবে একটু দেরিতে সংগঠিত হয় । নতুন প্রযুক্তির উদ্ভাবনের সাথে সম্প্রচার মাধ্যমগুলোতেও উন্নতি সাধিত হয় । ওইলিয়াম বলেন, সম্প্রচার সুবিধা শুধু তাদের চাহিদাই তৈরি করে নি বরং যোগাযোগের ধারনাগুলোই সম্প্রচার মাধ্যমের কনটেন্ট তৈরি করেছে ।
 
 
 

POLITICAL ECONOMY AND THE SOCIAL CONSTRUCTION OF TECHNOLOGIES

 

POLITICAL ECONOMY রাজনৈতিক অর্থনীতির ঐতিহ্য চিহ্নিত করতে গেলে আমাদের প্রযুক্তিগত দীর্ঘমেয়াদি সামাজিক কার্যকরিতা এবং সমাজ ,সংস্কৃতি , রাজনীতি, অর্থনীতি এবং সামাজিক সম্পর্কের উপর প্রযুক্তির প্রভাব সম্পর্কে জানতে হবে ।সামাজিক শক্তি এবং সামাজিক সম্পর্কের প্রক্রিয়া সামগ্রিক সামাজিক গঠন , উৎপাদনের ধরন প্রভৃতি তৈরির ভিত্তি হিসেবে কাজ করে । কার্ল মার্কস্ অর্থনীতি ভিত্তিক এবং সামাজিক কাঠামোর মধ্যে সম্পর্কগুলো আলোচনা করেছেন । তার বিশ্লেষণে নিউ মিডিয়া প্রযুক্তির ইতিহাস রাজনৈতিক অর্থনীতির প্রেক্ষাপট থেকে নিউমিডিয়ার উন্নয়নের প্রতি প্রয়োগ করা হয় । . এবিষয়ে একমত যে , বিভিন্ন প্রযুক্তি , যেমন – টেলিভিশন ,রেডিও, টেলিফোন, কম্পিউটার, যোগাযোগ নেটওয়ার্ক প্রভৃতির ঐতিহাসিক উন্নয়ন ধারাবাহিকতাকে নির্দেশ করে এবং এটি প্রচলিত রূপান্তর থেকে ভিন্ন ।

 
WIBE BIJKER প্রযুক্তির সামাজিক গঠন ধারণাটি উন্নত করেছেন ।তিনি যুক্তি দিয়েছেন যে, সামাজিক প্রযুক্তিগত পরিবর্তন তত্ত্বে কমপক্ষে তিনটি উপাদান থাকতে হবে । এগুলো হল ,
১. এটি টেকসই ,ধারাবাহিক ও স্থির হওয়া উচিত । প্রযুক্তিগত পরিবর্তন পরীক্ষা- ভুল দৃশ্যমান অভিজ্ঞতার দ্বারা শেথা এবং ব্যবহারের দ্বারা শেখা প্রভৃতি দ্বারা প্রভাবিত ।
২. এখানে যে কোন একটি বিষয়কে প্রধান্য দেওয়ার বিষয়টি পরিহার করতে হবে । এ বিষয়গুলো হল – বৈজ্ঞানিক ,প্রযুক্তিগত, সামাজিক, সাংস্কৃতিক অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক বিষয় ।প্রযুক্তির পরিবর্তনে এসকল বিষয়ের প্রভাব সবচেয়ে বেশি ।
৩.ব্যক্তিগত ও সামাজিক বিভিন্ন দলের দ্বারা প্রযুক্তিগত পরিবর্তনের মধ্যে ভারসাম্য রক্ষা করতে হবে ।
 
 
 

THE NEXT LONG WAVE

 
১৯২০ এর দশকে রাশিয়ান অর্থনীতিবিদ IKOLAI KONDRATIEV LONG WAVE তত্ত্বটি তৈরি করেন । প্রযুক্তির দীর্ঘমেয়াদি এপ্রোচগুলো বোঝার জন্য LONG WAVE তত্ত্বটি জানা জরুরী ।
প্রবৃদ্ধি স্থিরতা শিল্প বিপ্লবের পরের সময় থেকে ৫০ বছরের চক্রাকার ধারা চলে আসছে।
লং ওয়েভ তত্ত্বটি বৈশ্বিক পুঁজিবাদী অর্থনীতির প্রচলিত বিষয়ের বিশ্লেষণযোগ্য প্রায়োগিক বিষয়গুলোকে চিহ্নিত করেছে।যা দ্বারা ৫০ বছরের চক্রাকার প্রবৃদ্ধি, মন্দা অবস্থা ও নবায়নকৃত প্রবৃদ্ধি কে প্রমাণ করে।
দুই ধরনের ব্যাখ্যা এ পর্যন্ত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে ধরা হয়। প্রথম তত্ত্ব মতে, অর্থনৈতিক মন্দাবস্থা সে সকল কর্পোরেশনের জন্য সংকটপূর্ণ অবস্থা তৈরি করে যারা শক্তিশালী প্রযুক্তি গুলোকে মান্য করে । কারণ নতুন অর্থনৈতিক এবং প্রযুক্তিগত উন্নয়ন এবং তাদের প্রাতিষ্ঠানিক আয়োজনগুলোর মধ্যে বৈসাদৃশ্য রয়েছে । একি সময়ে সংকট নতুন চিন্তাধারার পণ্য এবং নতুন প্রক্রিয়ার জন্য উদ্দীপনা হিসেবে কাজ করে । এ সময়ে নতুন উদ্যোক্তা গণ অর্থনৈতিক অবস্থার সুযোগ গ্রহণে সমর্থ হয় ।
দ্বিতীয়ত, তত্ত্বটি মার্কসবাদী রাজনৈতিক অর্থনীতি থেকে এসেছে । এ তত্ত্ব মতে , অর্থনৈতিক মন্দার বীজ অর্থনৈতিক বিস্ফোরণের সাথে যুক্ত থাকে । অর্থনৈতিক বিস্ফোরণ সংগঠিত শ্রমিকদের দর কষাকষির অবস্থান শক্তিশালী করে । যেহেতু বেকারত্বের হার কমে যায় । এ সময়ে পুজিপাতিরা অধিক বিনিয়োগ করে । যদিও বাজারে অতটুকু চাহিদা থাকে না ।

A NEW ECONOMY ?
……..
THE NETWORK SOCIETY : MANUEL CASTELL’S THEORY OF THE NEW ECONOMY
…….

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*