সাক্ষাতকার কি? সাংবাদিকতায় সাক্ষাতকার গ্রহণে প্রয়োজনীয় নির্দেশিকা

সাক্ষাতকার কি
সাংবাদিকতায় সাক্ষাৎকার বলতে যা বোঝায় তা হল রিপোর্টার ও সাক্ষাৎকারদাতার যোগাযোগের ফসল। রিপোর্টারর যদি আগ বাড়িয়ে কোনো খোঁজ খবর না নেয়,প্রশ্ন জিজ্ঞেস না করে তবে সংবাদপত্র হয়ে যায় আয়োজিত ঘটনা এবং সংবাদ বিজ্ঞপ্তির রেকর্ড।

 সাধারণ অর্থে, সাক্ষাৎকার গ্রহণের উপর ভিত্তি করে রিপোর্টার যে সংবাদ তৈরি করেন তাকে সাক্ষাৎকার নির্ভর সংবাদ বলে।





সাক্ষাৎকারকে বলা হয় সব সংবাদের উৎস। সমাজ ও রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের কাছে প্রচুর তথ্য থাকে। এ ধরন র ব্যক্তিরা প্রতিটি বিষয়ে নিজস্ব যুক্তি নির্ভর মতামত পোষণ করেন, যা সাধারণ চিন্তা চেতনাকে নাড়া দিতে পারে একজন বুদ্ধিজীবী সমাজ উন্নয়নের জন্য যে প্রত্যাশা লালন করেন তা তাঁর পক্ষে ১৬ কোটি মানুষের ঘরে গিয়ে বলে আসা সম্ভব না।

এক্ষেত্রে রিপোর্টার একজন বিশেষ দূতের মতো কাজ করেন।তিনি নামী ব্যক্তিদের খুঁজে বের করেন, প্রশ্ন জিজ্ঞেস করে উত্তর লিপিবদ্ধ করেন এবং সাধারণ পাঠকের সামনে সেই বিষয়গুলো তুলে ধরেন। একিভাবে সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের বক্তব্যও সমাজের নীতি নির্ধারকদের সামনে তুলে ধরা যায়।
.

আবার, একটি সাধারণ সংবাদ সংগ্রহের সময়ও রিপোর্টারের সবচেয়ে বড় অস্ত্র হল সাক্ষাৎকার। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, একটি সড়ক দুর্ঘটনার সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে রিপোর্টার দেখলেন দুর্ঘটনা স্থলের সব কিছু সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। আহতদের হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। এ অবস্থায় রিপোর্টারর দুর্ঘটনাস্থলের আশেপাশে থাকা প্রত্যক্ষদর্শীদের সাক্ষাৎকার নিবেন। উক্ত এলাকার পুলিশ অফিসারের সাক্ষাৎকার নিবেন। হাসপাতালে গিয়ে আহতদের ব্যাপারে খোঁজ খবর নিবেন। এভাবে বিভিন্ন ব্যক্তির সাক্ষাৎকার গ্রহণ করে রিপোর্টার দুর্ঘটনার সংবাদ গল্পটি তৈরি করবেন।

সাক্ষাতকার কি



১৮৩৬ সালের সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে সংবাদ পরিবেশনের ধারণাটি আবিষ্কৃত হয়। নিউইয়র্ক সিটির একটি ফ্যান্সি হাউসে একটি খুনের ঘটনার ব্যাপারে তার মালিক রোজিনা টাউনসেন্ডকে ‘নিউইয়র্ক হেরাল্ড‘ এর সাংবাদিক জেমস্ গর্ডন বেনেট যে প্রশ্নাবলী করেন তা পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। বেনেটের নেওয়া এধরন র বহু সাক্ষাৎকার নিউইয়র্ক হেরাল্ড পত্রিকায় প্রকাশিত হয়।

 এবং এ থেকে চালু হয় সংবাদ পরিবেশনের এ ধারণাটি

সাক্ষাতকার কি

Know More…..ফিচার কি? পত্রিকায় প্রকাশিত ফিচার সম্পর্কে কিছু কথা




লেখক : মোঃ সাইফুল ইসলাম
৪র্থ বর্ষ (২১ তম ব্যাচ)
যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

 

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*