প্রচারণার কৌশল । প্রচারণার সাতটি মৌলিক কৌশল

মো: সাইফুল ইসলাম:


প্রচারণার কৌশল । প্রচারণার সাতটি মৌলিক কৌশল

প্রচারণার কৌশল
Propaganda Techniques

1. Name Calling(বদনাম দেওয়া)
2. Transfer(স্থানান্তর)
3. Testimonial(প্রশংসা)
4. Plain Folks(সাধারণের কাতারে দাঁড়ানো )
5. Band Wagon(সারিবদ্ধ পদ্ধতি)
6. Glittering Generality(মনোগ্রাহী সাধারণ উক্তির ব্যবহার)
7. Card Stacking( তাস ভাঁজ করার কৌশল)




1. Name Calling(বদনাম দেওয়া)

 Name Calling বা বদনাম দেওয়া একটি অন্যতম প্রচারণা কৌশল। সরাসরি কারো নামে বদনাম করা দ্বারা বিরোধীর প্রতি সরাসরি আক্রমণ করা হয় । যদি অডিয়েন্স সরাসরি বদনাম দেওয়ার বিষয়টি পছন্দ না করে সেক্ষেত্রে পরোক্ষ Name Calling ব্যবহৃত হয় । এক্ষেত্রে সার্কাজম ব্যবহার করা হয় । কার্টুন, ছবি প্রভৃতি বদ নাম দেওয়ার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয় । এ কৌশল টি প্রায় রাজনৈতিক ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে দেখা যায়।

2. Transfer(স্থানান্তর)
এ কৌশলটি কোন বিখ্যাত ব্যক্তির সুনাম কোন পণ্যের সাথে জুড়ে দেওয়া হয় । এতে করে পণ্যের প্রচার বা অপপ্রচার করা হয় । কোন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তির কোন পণ্য জুড়ে দেওয়ার বিষয়টি ইতিবাচক স্থানান্তর । কোন কুখ্যাত ব্যক্তির সাথে কোন বিষয়ের তুলনা করলে তা নেতিবাচক প্রচারণা কৌশল বলে বিবেচিত হয়। এ কৌশলটি যুদ্ধকালীন সময়েও ব্যবহার করা হয়ে থাকে ।


3. Testimonial(প্রশংসা)
এ পদ্ধতিতে কোন বিশেষজ্ঞ বা বিখ্যাত ব্যক্তি কে কোন ধারণা বা পণ্য প্রচারের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয় । যেমন- কোন ফুটবলার একটি বিশেষ কোন কোম্পানির জুতো ক্রয় করার জন্য বলছেন । সাধারণত , মানুষ বিখ্যাত ব্যক্তিদের আদর্শ ব্যক্তি হিসেবে মানে। তাই প্রায় সময় সেলেব্রেটিদের বিভিন্ন পণ্যের বিজ্ঞাপনে দেখা যায় । এক্ষেত্রে প্রশংসা অবশ্যই প্রাসঙ্গিক হতে হবে । বিজ্ঞাপন দাতাদের ভুল প্রশংসা করা উচিত নয় ।


4. Plain Folks(সাধারণের কাতারে দাঁড়ানো )
সাধারণত, মানুষ তাদের মধ্যে থাকা সাধারণ মূল্যবোধ গুলোর দ্বারা আকর্ষিত হয়। অডিয়েন্সের মূল্যবোধ অনুযায়ী প্রচারণাকারী নিজেদের একজন বলে দাবি করে । ফলে প্রচারণাকারী অডিয়েন্সের আস্থা অর্জন করে । এতে করে সহজে প্রচারণাকারী অডিয়েন্সের সাথে যুক্ত হয় এবং উদ্দেশ্য অর্জনের চেষ্ঠা চালায় । যেমন- প্রায় সময় রাজনীতিবিদদের বলতে শোনা যায়, ”আমি তোমাদেরই লোক” । এ কথাটি দ্বারা তারা অডিয়েন্সের আস্থা অর্জন করে।


5. Band Wagon(সারিবদ্ধ পদ্ধতি)
এ পদ্ধতির উদ্দেশ্য হল মানুষকে একটি নির্দিষ্ট বিষয়ের প্রতি প্ররোচিত করা । কারণ তা ইতোমধ্যে অনেকে করেছে । উদাহরণস্বরূপ কোমল পানীয়ের বিজ্ঞপনের কথা বলা যায় । এখানে অনেক লোকজন কে একিসাথে একি পানীয় পান করার দৃশ্যে দেখা যায় । মানুষ উক্ত পানীয়টির সাথে নিজেকে পরিচিত অনুভব করতে শুরু করে ।কারণ তা অনেকে পান করছে ।


6. Glittering Generality(মনোগ্রাহী সাধারণ উক্তির ব্যবহার)
এটি প্রচারণার গুরুত্বপূর্ণ একটি কৌশল । এখানে বিভন্ন চমৎকার শব্দ, বাক্য ব্যবহার করে অডিয়েন্সের মনোভাবকে প্ররোচিত করার চেষ্ঠা করা হয় । এটা প্রায় সময় অস্পষ্ট থাকে কিন্তু তা ইতিবাচক হয়ে থাকে। যেমন- বলা হল it’s cool . এখানে cool কি তা নির্দিষ্ট করে বলা হয় না ।


7. Card Stacking( তাস ভাঁজ করার কৌশল)
এখানে তথ্যগুলো কে নিজেদের ইচ্ছে অনুযায়ী সাজানো হয়। যাতে করে পণ্যটিকে আরো ভাল বলে উপস্থাপন করা যায়। প্রচারণাকারী শুধু মাত্র পণ্যের সবচেয়ে ভাল দিকগুলোই অডিয়েন্সের সামনে তুলে ধরে এবং খারাপ দিকগুলো বাদ দেয় । Apple Mac এবং  Windows কোম্পানির কম্পিউটারের বিজ্ঞাপন 
Card Stacking এর উজ্জল উদাহরণ । এধরণের প্রচারণার সফলতা গ্রাহকের পছন্দের উপর নির্ভর করে।

Know More……

প্রচারণা মডেল । নোয়াম চমস্কির প্রচারণা মডেলের পাঁচটি ফিল্টার






লেখক : শিক্ষার্থী
৪র্থ বর্ষ( ২১ তম ব্যাচ )
যোগাযোগওসাংবাদিকতা বিভাগ
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*