গণমাধ্যম মালিকানা র বিভিন্ন ধরন

মো: সাইফুল ইসলাম:


গণমাধ্যম মালিকানা র বিভিন্ন ধরন


আমাদের দেশে যে গণমাধ্যমগুলো রয়েছে তা সবগুলোই তাদের মালিকানা দ্বারা প্রভাবিত। নিচে গণমাধ্যম মালিকানার কিছু ধরন সম্পর্কে সংক্ষেপে আলোচনা করা হল।



 

১.ব্যক্তিগত মালিকানা

এ ধরনের মালিকানায় একজন মাত্র ব্যক্তি কোম্পানির মালিকানায় থাকে। তার কাছ থেকেই সকল সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। একজন ব্যক্তির উপরই মিডিয়া হাউজের নিয়ন্ত্রণ থাকে। এ ধরনের মালিকানার ধরন ছোট পরিসরের মিডিয়া হাউসগুলোর জন্য উপযুক্ত।



গণমাধ্যম মালিকানা২. অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে মালিকানা

এ ধরনের মালিকানায় কমপক্ষে দুইজন মালিক থাকেন এবং সর্বোচ্চ ২০ জন পর্যন্ত মালিক থাকতে পারেন । এ ধরনের মালিকানায় একজন মালিকের হাতে সকল নিয়ন্ত্রণ ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা থাকে না। মিডিয়া ব্যবসায়ের লাভ ক্ষতির ভাগ নিজেদের মধ্যকার চুক্তি অনুযায়ী ভাগ করা হয়। এ ধরনের মালিকানা সাধারণ অংশীদারির মাধ্যমে হতে পারে অথবা প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি গঠনের মাধ্যমেও গঠিত হতে পারে।




৩. কর্পোরেশন মালিকানা :

এটি মিডিয়া মালিকানার সবচেয়ে পরিচিত ও জনপ্রিয় ধরন। এধরনের মালিকানার জন্য কমপক্ষে ৫ জন ব্যক্তি বা ৫ টি পক্ষ থাকতে হয়। কর্পোরেশন মালিকানার নীতিমালা দ্বারা কোম্পানিগুলো গড়ে ওঠে। এ ধরনের মালিকানায় একটি পরিচালনা পর্ষদ তৈরি করা হয়। এবং লাভের অংশ ও ক্ষতির ভাগ নিয়ম অনুযায়ী মালিকদের নিকট ভাগ করে দেওয়া হয়। BBC এধরনের মালিকানায় পরিচালিত মিডিয়ার উজ্জ্বল উদাহরণ।

৪. গ্রুপ বা চেইন মালিকানা :

এ ধরনের মালিকানায় দুই বা তার অধিক মিডিয়া একি প্রতিষ্ঠানের মালিকানার অন্তর্ভুক্ত থাকে। প্রতিটি মিডিয়া হাউজের জন্য আলাদা নীতি ও পরিচালনা পর্ষদ থাকতে পারে তবে তারা একটি প্রতিষ্ঠানের চেইন অব কমান্ডে থাকে। বাংলাদেশে প্রথম আলো , ডেইলি স্টার, এবিসি রেডিও, সাপ্তাহিক ২০০০ মিডিয়া হাউজগুলো শিল্পপতি লতিফুর রহমানের প্রতিষ্ঠিত ট্রান্সকম গ্রুপের মালিকানায় পরিচালিত হয়।

৫। কর্মচারী মালিকানা

এ ধরনের মালিকানায় মিডিয়া হাউজের কর্মীদের কাছেই প্রতিষ্ঠানের মালিকানার বেশিরভাগ শেয়ার থাকে। সকল কর্মচারী মিলে একটি কমিউনিটি তৈরি করে। এতে সিদ্ধান্ত গ্রহণে সকল কর্মচারীর ভূমিকা থাকে। এবং দায়দায়িত্ব ও সকলের উপর বর্তায়।

৬. উলম্ব মালিকানা

এ ধরনের মালিকানায় একটি প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন মিডিয়া মিডিয়া হাউজের মালিক হয়। এটি অনেকটা গ্রুপ মালিকানার মতো। একি প্রতিষ্ঠানের মালিকানায় সংবাদপত্র, টেলিভিশন, রেডিও, ম্যাগাজিন প্রভৃতি থাকতে পারে।


৬. প্রচলিত মালিকানা
প্রচলিত 
মালিকানা তিন ধরনের যথা-

ক.পুঞ্জিভূত মালিকানা

 মালিকানায় দুই বা তার অধিক কোম্পানি একি মালিকানার উপর ভিত্তি করে গড়ে ওঠে। এ ধরনের মালিকানায় একটি বিশাল কোম্পানির আওতায় বিভিন্ন মিডিয়া হাউজ কাজ করে।

খ. কোম্পানি মালিকানা

কোম্পানি আইনের অধীনে গড়ে ওঠা মিডিয়া হাউজগুলো এ ধরনের মালিকানার অন্তর্ভুক্ত। শেয়ার বাজারে এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের শেয়ার বিক্রি করা হয়। এবং লাভের অংশ সকল শেয়ার হোল্ডারদের কাছে ভাগ করে দেওয়া হয়।

গ. ট্রাস্ট মালিকানা :

ট্রাস্ট বলতে সাধারণত সম্পর্ক কে বোঝায়। যেখানে জনকল্যাণের উদ্দেশ্যে মালিকপক্ষ কিছু সেবামূলক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলে। এ ধরনের মালিকানায় সাংবাদিকরা বস্তুনিষ্ঠ সংবাদের প্রতি সচেতন হতে পারে। এ ধরনের মালিকানায় মিডিয়া হাউজ বড় হতে অনেক সময়য় লাগে। তবে এখানে অন্যান্য মালিকানার মতো মুনাফা লাভ করাটাই মুখ্য উদ্দেশ্য নয়।

Know More…..সংবাদপত্র প্রতিষ্টানের বিজ্ঞাপন বিভাগের কার্যাবলী

লেখক : শিক্ষার্থী
৪র্থ বর্ষ( ২১ তম ব্যাচ )
যোগাযোগওসাংবাদিকতা বিভাগ
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*